শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিফলকের জন্য রায়েরবাজার নির্ধারিত

শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিফলকের জন্য রায়েরবাজার নির্ধারিত

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ওই বছরের ১৩ নভেম্বরের ঘটনা।)

কুখ্যাত আলবদর বাহিনীর হাতে নিহত বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে রায়েরবাজার এলাকায় কাটাবাড়িতে একটি স্মৃতিফলক স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ১৪ ডিসেম্বরের আগে স্মৃতিফলক স্থাপনের কাজ শেষ করার নির্দেশ দেন। স্মৃতিফলকে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের নামেরও উল্লেখ থাকবে বলে বাসসের খবরে প্রকাশ করা হয়। আগামী ১৪ ডিসেম্বর কাটাবাড়িতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা বিভাগ সমিতি বুদ্ধিজীবী হত্যাসহ মুক্তির কাণ্ডারিদের স্মরণে অনুষ্ঠান আয়োজন করার সিদ্ধান্ত নেয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বঙ্গবন্ধুর যোগদানের এবং উক্ত স্মৃতিফলক উন্মোচন করার সম্ভাবনা রয়েছে।
উল্লেখযোগ্য যে ১৯৭২ সালের ১৪ ডিসেম্বর তারিখে পাকবাহিনীর দালাল দ্বারা বহু সংখ্যক লেখক, সাহিত্যিক, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার ছাত্রকে শহরের কারফিউ জারি থাকার সময় বাসা থেকে ধরে নিয়ে যায় এবং পরে পাক বাহিনীর আত্মসমর্পণের প্রাক্কালে আল বদর দলের গুণ্ডারা কাটাবাড়ি বধ্যভূমিতে তাদের নৃশংসভাবে হত্যা করে।
স্বাধীনতার পরে বধ্যভূমি থেকে অনেকের গলিত বিকৃত লাশ উদ্ধার করা হয়। একটি প্রতিনিধি দল ১৯৭২ সালের ১৩ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী সঙ্গে দেখা করে তাকে ১৪ ডিসেম্বর যে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে সেখানে প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করার অনুরোধ জানান। একইসঙ্গে তারা বঙ্গবন্ধুর কাছে রায়েরবাজার বধ্যভূমিকে ঐতিহাসিক স্থান হিসেবে সংরক্ষণ করা এবং দেশের স্বাধীনতার জন্য একটি স্মরণীয় করে রাখার জন্য সেখানে একটি স্মৃতিফলক স্থাপনের প্রস্তাব করেন। বঙ্গবন্ধু পূর্তমন্ত্রী মতিউর রহমানকে স্মৃতিফলক স্থাপনের উদ্দেশে একটি স্থান নির্বাচনের জন্য দর্শনীয় স্থান পরিদর্শনের ও তৈরির নির্দেশ দেন।

 

“>
পাট নিয়ে জরুরি কর্মপন্থা প্রয়োজন
৪ নভেম্বর থেকে ঘোড়াশাল বাংলাদেশ জুটমিল লে-অফ ঘোষণা করা হয়। মিলের উৎপাদিত অবিক্রীত পাটজাত দ্রব্য এত বেশি জমে গেছে যে মিলের গুদাম ভর্তি হয়েও মিল আঙ্গিনার মধ্যে স্তূপাকার করে রাখার ফলে চলাফেরায় বাধা সৃষ্টি করছে। ফলে কর্তৃপক্ষ লে-অফ ঘোষণা করতে বাধ্য হয়েছেন বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানানো হয়। বাংলাদেশ জুটমিলে বেশ কিছু দিন আগে থেকে উৎপাদিত অবিক্রীত পাটজাত দ্রব্য বিক্রি হচ্ছিল না, কর্তৃপক্ষ এসব পাটজাত দ্রব্য বিক্রি ব্যবস্থা করতে ব্যর্থ হয়। সবাই মিলে উৎপাদিত পাটজাত দ্রব্য পরীক্ষা করে তা আশানুরূপ মানের না হওয়ায় বাতিল করেছেন বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে।
চোরাচালান বন্ধে সেনাবাহিনীর সাফল্য
সীমান্তে চোরাচালান বন্ধে সেনাবাহিনী মোতায়েনের সপ্তাহের মধ্যে সমগ্র সীমান্ত অঞ্চল কার্যকরভাবে বন্ধ করে দিয়ে চোরাচালান বা অন্য যেকোনও বেআইনি পণ্য চলাচল বন্ধ করা হয়। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চিফ অফ স্টাফ কে এম শফিউল্লাহ এ বিষয়ে অবহিত করেন এবং উপস্থিত জনগণ তাকে প্রশ্ন করেন এবং সেনাবাহিনীর সকল প্রশংসা করেন। জনাব শফিউল্লাহ এনার কাছে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ তথ্য দেন।


বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ
ভারতের হাইকমিশনার সুবিমল দত্ত, জার্মান ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিকের রাষ্ট্রদূত এইদিনে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব সুবিমল দত্ত জানান, তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে ভারত সরকারের কোনও বাণী বহন করে আনেননি। এই কর্মসূচি অনুযায়ী এটি একটি সাক্ষাৎ মাত্র।
আটক বাঙালি হাজিরা ফিরছেন
আন্তর্জাতিক রেড ক্রসের এটি বিমানযোগে পাকিস্তানি আটক ৮৫ জন হাজির ঢাকা পৌঁছানোর কথা আছে। আরও একশ জন হাজি নিয়ে পরবর্তী ফেরার দিন ১৬ নভেম্বর বলে জানানো হয়েছে। এরা পাকিস্তানের আমলে ১৯৭০ সালের সৌদি আরবে হজ করতে গিয়েছিলেন। আন্তর্জাতিক রেড ক্রস কমিটি পাকিস্তানের কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ আলোচনা চালিয়ে হাজিদের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ব্যবস্থা করে। আন্তর্জাতিক বিমান পাকিস্তানে আটক বাংলাদেশিদের জন্য গতকাল সকালে কলকাতা থেকে লাহোর গমন করে। হাজির প্রথম দলটি আগামীকাল সকাল সাড়ে সাতটায় লাহোর ত্যাগ করে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ঢাকায় পৌঁছাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!