নকলায় ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ১৭ জনকে জরিমানা করা হয়েছে

নকলায় ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ১৭ জনকে জরিমানা করা হয়েছে

নকলা প্রতিনিধি:শেরপুর জেলার নকলা উপজেলায় বিভিন্ন আইন অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ১৭ জনকে মোট ৫ হাজার ৬০০ টাকা অর্থদন্ড করা হয়েছে। ৩০ নভেম্বর সোমবার সন্ধ্যার পূর্ব মুহুর্তে নকলা বাজারে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী বিচারক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুর রহমান এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাউছার আহাম্মেদের নেতৃত্বে আলাদা অলাদা স্থানে এ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়।

আদালত পরিচালনা কালে পথচারী, দোকানি, ব্যবসায়ী ও খরিদদারকে করোনা ভাইরাস (কোভিট-১৯) এর দ্বিতীয় ঢেউয়ের ভয়াবহতা সম্পর্কে অবহিত করা হয়। তাছাড়া মাস্ক পরিধানে সকলকে সচেতন করার পাশাপাশি মধ্য বাজারের রাস্তা গুলোতে দোকান বসিয়ে গণ উপদ্রব না করতে ও পলিথিনসহ যেকোন নিষিদ্ধ পণ্য মজুদ বা বেচা-কেনা না করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

অর্থদন্ড প্রাপ্তদের মধ্যে মাস্ক পরিধান না করায় ১৩ জনকে প্রতি জনে ২০০ টাকা করে মোট ২ হাজার ৬০০ টাকা, পাটের মোড়কের পরিবর্তে নিষিদ্ধ পলিথিন জাতীয় মোড়ক ব্যবহার করায় ২ জনকে প্রতি জনে এক হাজার টাকা করে মোট ২ হাজার টাকা ও মধ্য বাজারে রাস্তায় দোকান বসিয়ে গণ উপদ্রব করায় ২ জনকে প্রতি জনে ৫০০ টাকা করে মোট এক হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী বিচারক সহকারী কমিশনার (ভূমি) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাউছার আহাম্মেদ জানান, বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস (কোভিট-১৯) এর দ্বিতীয় ঢেউয়ের ক্ষতিকর প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা খুব বেশি। কোভিট-১৯ এর দ্বিতীয় ঢেউয়ের ক্ষতিকর প্রভাব মোকাবেলায় মাস্ক পরিধান ও স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে ব্যাপক প্রচারণা ও এর প্রভাব সম্পর্কে সকলকে অবহিত করা সকলের নৈতিক দায়িত্ব। তাই নিজে মাস্ক পরিধান করে অন্যকে মাস্ক পরিধান করতে সসকলকে সচেতন করা উচিত বলে তিনি মনে করেন। দোকানীকে যে কোন নিষিদ্ধ পন্য মজুদ ও বানিজ্যিক উদ্দেশ্যে সরবরাহ, ক্রয়-বিক্রয়ের বিষয়ে সাবধান হওয়ার পাশাপাশি বাজারের মধ্যে রাস্তায় দোকান বসিয়ে গণ উপদ্রব না করতে সচেতন করা হয়েছে বলে জানান নির্বাহী বিচারক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুর রহমান।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের ও উপজেলা ভূমি অফিসের বিভিন্ন স্তরের কর্মচারী, নকলা থানায় কর্মরত পুলিশ সদস্য, ব্যবসায়ী, খরিদদার ও স্থানীয় সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন। জনস্বার্থে এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুর রহমান ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাউছার আহাম্মেদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!