টাকার অভাবে চিকিৎসা বিহীন অগ্নিদগ্ধ শিশু মা হারা সুমি আক্তার

টাকার অভাবে চিকিৎসা বিহীন অগ্নিদগ্ধ শিশু মা হারা সুমি আক্তার

মোহাম্মদ দুদু মল্লিক: টাকার অভাবে চিকিৎসা বিহীন শিশু সুমি আক্তার প্রয়োজনীয় অর্থের অভাবে ভালোভাবে চিকিৎসা করানো যাচ্ছে না তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী অগ্নিদগ্ধ সুমি আক্তারের হাসপাতালের বেডে কাতরানো সুমি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠতে পাচ্ছে না প্রয়োজনীয় চিকিৎসার অভাবে। সুমি আক্তার সীমান্তবর্তী শেরপুর জেলার নালিতাবাড়ী উপজেলার শেখেরকুড়া গ্রামের হতদরিদ্র শুক্কুর আলীর কন্যা। বর্তমানে সে নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সুমির পরিবার জানায়, সুমির মা তিন বছর আগে অন্যের হাত ধরে চলে গেছে। সুমি, তার বাবা শুক্কুর আলী ও দুই ভাইসহ চারজনের সংসার। ঘরে মা না থাকায় রান্নাবান্নাসহ গৃহস্থলীর কাজ করতে হয় তৃতীয় শ্রেণি পড়–য়া ৮ বছর বয়সী সুমিকেই। প্রায় এক মাস আগে সকালে রান্না করার সময় অসাবধানতাবশত পড়নের জামায় আগুন লাগে সুমির। এতে তার শরীরের প্রায় ত্রিশ শতাংশ পুড়ে যায়। অগ্নিদগ্ধ সুমিকে ভর্তি করা হয় নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। সরকারীভাবে চিকিৎসা পেলেও প্রয়োজনীয় সব ওষুধ সরকারীভাবে পাওয়ার সুযোগ নেই। ফলে কিছু ওষুধ কিনতে হয় বাইরে থেকে। দ্রুত সুস্থ হওয়ার জন্য সাথে প্রয়োজন পথ্য। ফলে সুমির দরিদ্র বাবার পক্ষে এ ব্যয় বহন করা সম্ভব হচ্ছে না। এমতাবস্থায় সুমির বাবা শুক্কুর আলী মাতৃস্নেহ বঞ্চিত একমাত্র কন্যাকে সুস্থ করে তোলতে সমাজের বিত্তবানদের সাহায্য প্রার্থনা করেছেন। তার বাবার ব্যবহৃত মোবাইল নং ০১৩২-২১৩৯০১৮।নালিতাবাড়ী হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ সাব্বির আহাম্মেদ বলেন, সুমির শরীরের প্রায় ৩০ ভাগ পুড়ে গিয়েছিল। এখন ধীরে ধীরে সেড়ে উঠছে। সম্পূর্ণ সুস্থ হতে দীর্ঘ সময় লাগবে। আমরা সাধ্যমতো চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছি তবে মা হারা সুমিকে আরও উন্নত চিকিৎসার ব্যাবস্থা করতে পারলে ভালো হতো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.