শেরপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান” তরমুজের বাজার নিয়ন্ত্রণে

শেরপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান” তরমুজের বাজার নিয়ন্ত্রণে

স্টাফ রিপোর্টার ঃমৌসুমের শেষের দিকে এসেই যেনো শেরপুরের প্রতিটি বাজারে তরমুজের চাহিদা বেড়েছে। এজন্য বিক্রেতারা অন্যান্য ব্যবসার পাশাপাশি তরমুজ বিক্রি করছেন। তবে শেরপুরে এবারই প্রথম তরমুজের বাজার চড়া। কেজি হিসেবে তরমুজ কিনতে গিয়ে অতিরিক্ত দামে হিমশিম খেতে হচ্ছে ক্রেতাদের। মাঝে মধ্যে তরমুজের দাম নিয়ে ক্রেতা ও খুচরা বিক্রেতাদের কথা কাটাকাটিও হচ্ছে। এ নিয়ে শেরপুর জেলাভিত্তিক অনলাইন নিউজ পোর্টাল চারুবার্তা২৪ডটকম, শেরপুর টাইমস ও নতুনযুগ নিউজে মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) সন্ধ্যায় একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে নজরে আসে জেলা প্রশাসনের। এরপর প্রকাশিত প্রতিবেদন পরেরদিন বুধবার (২৮ এপ্রিল) দুপুরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের থেকে জেলা শহরের বিভিন্নস্থানে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে। এতে মুহুর্তেই তরমুজের কেজি পিস হিসেবে বিক্রি শুরু করে।

সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান মাহমুদ বলেন, ‘আমরা গতকাল একটি প্রতিবেদন দেখেছি। সেই প্রতিবেদন পর ভিত্তি করে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব স্যারের নির্দেশনায় শহরের খোয়াড়পাড়, নতুন বাস টার্মিনাল এবং রঘুনাথ বাজার এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করি। তরমুজ ব্যবসায়ীদের কাছে ক্রয়ের চালানপত্র দেখি এবং সেই চালানপত্রে তারা মোকাম থেকে পিস হিসেবে এসব তরমুজ ক্রয় করেছেন। পরে তরমুজ ব্যবসায়ীদের পিস হিসেবে ও স্বল্প লাভে তরমুজ বিক্রির নির্দেশনা দিয়েছি। যদি না মানে তাহলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।থ

এদিকে ভ্রাম্যমান আদালতের খবর পেয়ে সব তরমুজের দোকানে তরমুজ কেজি দরে বিক্রি রেখে পিস হিসেবে বিক্রি করে। মুহুর্তেই যেনো তরমজুরের কেজি দরের দাম পিস হয়ে যায়।

থানার মোড়ে তরমুজ কিনতে আসা আবু জাফর বলেন, ‘কাল ফেসবুকে আপনাদের একটি খবর দেখলাম। আজ এসে দেখি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হচ্ছে এবং কেজি বদলে পিস হিসেবে বিক্রি শুরু করেছে। আমিও পিস হিসেবে দুইটি তরমুজ কিনলাম। ধন্যবাদ জেলা প্রশাসনকে।থ

সরবরখিলা এলাকার বাসিন্দা হাসমত আলী। তিনি এসেছেন খরমপুর মোড়ে তরমুজ কিনতে। এসময় কথা হয় তার সাথে। তিনি বলেন, ‘দুইদিন আগে কেজি দরে কিনেছি। কিন্তু আজ পিস হিসেবে বিক্রি করতে চাচ্ছে দোকানদার। কিন্তু বুঝলাম না কেনো পিস হিসেবে দিতেছে। তবে পিস হিসেবে বিক্রি হলে অনেক মানুষ তরমুজ খেতে পারবে। কারণ কেজি হিসেবে অনেকেই তরমুজ খেতে পারেনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!