শেরপুর হেল্পলাইনথর সহযোগিতায় সেলাই মেশিন পেল হতদরিদ্র নারী

শেরপুর হেল্পলাইনথর সহযোগিতায় সেলাই মেশিন পেল হতদরিদ্র নারী

স্টাফ রিপোর্টারঃ ফেসবুক ভিত্তিক গ্রুপ শেরপুর হেল্পলাইনের চতুর্থ বর্ষপূতি উপলক্ষে এক হতদরিদ্র নারীর মাঝে একটি সেলাই মেশিন উপহার দেওয়া হয়েছে। ১৫ মে শনিবার শহরের মধ্যশেরি বাড়ইপাড়া মহল্লার রতন চন্দ নাগের কন্যা কৃষ্ণা নাগের হাতে ওই সেলাই মেশিন তুলে দেওয়া হয়।

এ উপলক্ষে আয়োজিত সেলাই মেশিন হস্তান্তর অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শেরপুর হেল্পলাইনের অন্যতম এডমিন প্রণব দাস। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গ্রুপের প্রধান সমন্বয়ক সিনিয়র সাংবাদিক সুশীল মালাকার, পুলিশ লাইন্স একাডেমি ফর ক্রিয়েটিভ এডুকেশনের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ ও জেলা উদীচীর সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম আবু হান্নান।, এছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গ্রুপের এডমিন ও মডারেটর মারুফ, মিঠুন, প্রান্ত, সৌরজিৎ,জয়ন্ত দে প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে অতিথিরা কৃষ্ণা নাগের মেয়ে পূর্ণতার নামে টেইলার্সের নামকরণ করেন। সেইসাথে কৃষ্ণাকে কোন সরকারি বা বেসরকারি দপ্তরের সহযোগিতায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করার আশ্বাস দেন।

সেলাই মেশিন পেয়ে কৃষ্ণা বলেন, আমি অনেক খুশি। অনেক দিন ধরে সেলাইকাজের প্রাথমিক ধারণা নিয়েও একটি মেশিনের অভাবে কাজ করতে পারিনি। মেশিনটি পেয়ে আমাদের খুব উপকার হলো। এখন বাড়িতে বসেই জামা-কাপড় সেলাই করে টাকা আয় করতে পারব, পরিবারকেও সহযোগিতা করতে পারব। সেই সাথে শেরপুর হেল্পলাইনকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

শেরপুর হেল্পলাইনের এডমিনরা জানান, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে অনেক কিছু করার ইচ্ছে ছিলো। করোনার এই মহামারিতে কিছুটা পেরেছি, তবে না পারার হিসেবটাই বোধ হয় বেশ লম্বা হবে। তবুও একজনের উপকারে আসতে পারলেও নিজেদের ধন্য মনে করবো। চেষ্টা করেছি ভালো কিছু করার, আমাদের সেই চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। তারা আরো বলেন, অনেক ঝামেলার পরেও আমরা আমাদের এই গ্রুপ তৈরির লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও নীতি থেকে বিচ্যুত হইনি। আর এক্ষেত্রে আমরা কখনও আপোষ করবও না। সবার সহযোগিতা ও দোয়া চাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.