কর্মস্থল ঢাকায় ফেরা হলোনা নাজমার

কর্মস্থল ঢাকায় ফেরা হলোনা নাজমার

কর্মস্থল ঢাকায় ফেরা হলো না শেরপুর সদর উপজেলার চরশেরপুর ইউনিয়নের বাঘেরচর মধ্যপাড়া এলাকার মৃত সেকান্দর আলীর মেয়ে নাজমা বেগম (৩৭) নাতী লাল মনি (৭) ও ছেলে আমানুল্লাহ্’র (৩২)।
রবিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে শেরপুর হতে ঢাকার উদ্দেশ্যে নিহত আমানউল্লাহ্’র বেগুনভর্তী একটি পিকাপে কর্মস্থল ঢাকায় যোগ দিতে ওই পিকাপ করে যাচ্ছিলেন নাজমা ও তার শিশু কণ্যা লাল মনি। পথিমধ্যেই ময়মনসিংহ মহাসড়কে ত্রিশাল উপজেলার আমিরাবাড়ী ইউনিয়নের রায়মনি হাসমতের মোড়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে তাদের মৃত্যু হয়। একই সাথে সেই পিকাপে থাকা আক্রাম হোসেনও গুরুত্বর আহত হয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

পারিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, নিহত আমানুল্লাহ্ একজন বেগুন ব্যাপারী তিনি ২/৩ দিন পরপর ঢাকার উদ্দেশ্যে পিকাপ করে বেগুন নিয়ে যান। পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আমানুল্লাহ্’র বোন, ভাগ্নি কর্মস্থল ঢাকার টেক্সটাইল থেকে শেরপুরে বাবার বাড়ী ঈদ উদযাপন করতে আসেন। অফিস আদালত ও গার্মেন্টস ফেক্টরী খুলে যাওয়ায় ও লকডাউনে যাতায়াত কষ্টকর হওয়ায় ভাই আমানউল্লাহ্’র বেগুন ভর্তী পিকাপ করে কর্মস্থলে যোগ দেওয়ার জন্য সে পিকাপ করে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যেই ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় তারা মারা যান।

এদিকে নিহতের ভাই জানান, ১৫ দিন আগে আমার বাবার মৃত্যু হয়। এর শোক কাটতে না কাটতেই আমার ভাই, বোন ও ভাগ্নির মর্মান্তিক মৃত্যু হলো। আমার ভাই আমানউল্লাহ্ এক ছেলে সন্তানের জনক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!