শেরপুরে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ফিলিস্তিনে নিহতদের স্মরনে শ্রদ্ধা নিবেদন, বিচার দাবী

শেরপুরে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ফিলিস্তিনে নিহতদের স্মরনে শ্রদ্ধা নিবেদন, বিচার দাবী

স্টাফ রিপোর্টারঃ শেরপুরে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে ফিলিস্তিনে নিহতদের স্মরনে শ্রদ্ধা নিবেদন, ইসরাইলি বর্বরতায় ঘৃণা প্রকাশ এবং শিশু ও নিরীহ মানুষকে হত্যার জন্য ইসরাইলি বাহিনীর বিচার দাবী করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার জেলা শহরের কুসুমেশ্বরী শিব মন্দির প্রাঙ্গনে ঐক্য পরিষদের ৩৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়। সভার শুরুতে ফিলিস্তিনে নিহতদের স্মরনে দাঁড়িয়ে এক মিনিট শ্রদ্ধা নিবেদন ও প্রার্থণা করা হয়।

জেলা ঐক্য পরিষদের সভাপতি দেবাশীষ ভট্টাচার্যের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সাংবাদিক অ্যাড, আব্দুর রহিম বাদল। পরিষদের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক প্রভাষক মলয় চাকীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রিয় অতিথির বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা তালাপতুফ হোসেন মঞ্জু। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা বাদল চন্দ্র দে, শিক্ষাবিদ ও জন উদ্যোগের আহবায়ক মো. আবুল কালাম আজাদ, সদস্য সচিব সাংবাদিক হাকিম বাবুল, সঞ্জীব চন্দ বিল্টু. উদিচীর জাতীয় কমিটির সদস্য এ এস এম আবু হান্নান, ড্রিস্ক্রিট ডিবেট ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক বিতার্কিক ইমতিয়াজ চৌধুরী শৈবাল।

সংগঠনের তরফ থেকে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য কবি কমল চক্রবর্তী, নৃপেন ঘোষ, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক চিনময় সাহা মিঠু, দপ্তর সম্পাদক মনা সাহা, প্রচার সম্পাদক চিকিৎসক রতন চন্দ্র দাশ, সদর উপজেলা কমিটির সাধারন সম্পাদক সঞ্জীব চক্রবর্তী সঞ্জু, শেরপুর শহর কমিটির সভাপতি আদিবাসী নেতা মনিন্দ্র চন্দ্র বিশ্বাস, সাধারন সম্পাদক ইন্দ্রজিত চাকী, যুব ঐক্য পরিষদের আহবায়ক ইঞ্জিনিয়ার শান্ত রায়, সদস্য সচিব ইন্দ্রজিত বর্মণ, ছাত্র ঐক্য পরিষদের আহবায়ক শুভঙ্কর সাহা, সদস্য সচিব অন্তু সাহা প্রমূখ।

সভায় বক্তারা বলেন- এক সাগর রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। এ রক্ত প্রবাহে যেমন ছিল মুসলমানদের রক্ত, একইভাবে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, কোচ হাজং, গারো ঢাুল, বানাই, চাকমা, মারমাসহ সকলের রক্ত রয়েছে। রক্ত কোনদিন আলাদা করা যায় না। কোন রক্ত কার কেউ বলতে পারবে না। রক্তের কোন জাত ও ধর্ম হয় না। তাই সংখ্যালঘু বলে দেশে কিছু নেই। আমরা সবাই বাংলাদেশের নাগরিক। তাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লালন করতে হবে। ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

সভা শেষে কেক কেটে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের ৩৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!