চিলির সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে সমর্থকদের হতাশ করেছে আর্জেন্টিনা

চিলির সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে সমর্থকদের হতাশ করেছে আর্জেন্টিনা

অনলাইন ডেস্ক: ‘নিজেদের প্রথম ম্যাচে চিলির সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে সমর্থকদের হতাশ করেছে আর্জেন্টিনা। তবে দল জিততে না পারলেও এদিন নিজের দক্ষতা আরও একবার বিশ্বকে দেখালেন গ্রহের অন্যতম সেরা ফুটবল জাদুকর লিওনেল মেসি। নিজে দুর্দান্ত খেললেন। ১৮টি শটের পাঁচটি ছিল লক্ষ্যে, অবিশ্বাস্য এক ফ্রি-কিকে গোল করে দলকে এগিয়েও নিয়েছিলেন। কিন্তু এত প্রচেষ্টার পরও জিততে পারেনি আর্জেন্টিনা। স্বাভাবিকভাবেই হতাশ অধিনায়ক মেসি। অস্থিরতার কারণে চিলির বিপক্ষে জয় মেলেনি বলেও মনে করেন বার্সেলোনার এ তারকা ফরোয়ার্ড।;

‘মঙ্গলবার (১৪ জুন) বাংলাদেশ সময় মধ্যরাতে ব্রাজিলের রিও ডি জেনেরিওতে মাঠে নামে আর্জেন্টিনা ও চিলি। প্রথমার্ধেই দুর্দান্ত ফ্রি-কিক থেকে দলকে এগিয়ে নেন মেসি। তবে এডুয়ার্দ ভারগাসের গোলে শেষ পর্যন্ত ১-১ গোলে ড্র করে মাঠ ছাড়ে চিলি।;

‘ম্যাচশেষে মেসি জানালেন জিততে না পারার কারণ। বললেন, এই ড্র চিলিকে শান্তি দিয়েছে। তারা বল পায়ে রাখতে শুরু করেছিল আমরা সেটা নিজেদের করে নিতে পারিনি। ম্যাচটা এখানেই জটিল হয়ে গেছে। আমাদের স্থিরতার কমতি ছিল। যখন এগিয়ে গেলাম, তখনও স্থির হাতে পারিনি। মাঠ আসলেই খুব বেশি সাহায্য করেনি। বলের নিয়ন্ত্রণ এবং গতিময় খেলার ক্ষেত্রেও ঘাটতি ছিল আমাদের। যে কারণে ড্র হয়েছে।;

‘ম্যাচটা বেশ কঠিন ছিল উল্লেখ করে মেসি বলেন, ওই পেনাল্টিই ম্যাচ বদলে দিয়েছে। আমাদের এখন সামনের দিকে দৃষ্টি দিতে হবে। আগামী ম্যাচে এই ম্যাচের ভুলগুলো শুধরে আবারও এগিয়ে যেতে হবে। আমরা জিতে টুর্নামেন্ট শুরু করতে চেয়েছিলাম। আমাদের সামনে এখন উরুগুয়ে আছে, যে ম্যাচটাও যথেষ্ট কঠিন। আমাদের অবশ্যই পরের ম্যাচ নিয়ে চিন্তা করতে হবে এখন।;

‘এদিন ম্যাচের শুরু থেকেই দারুণ গোছালো ফুটবল খেলতে থাকে আর্জেন্টিনা। আর তাতেই তৈরি হতে শুরু করে গোলের সুযোগ। ম্যাচের ১২তম মিনিটে লো সেলসোর দারুণ এক পাসে ডি-বক্সের ভেতর বল পেয়ে যান লাউতারো মার্টিনেজ। তবে চিলির ডিফেন্ডারের চাপে পড়ে শেষ ছোঁয়াটা দিতে পারেননি তিনি। এর মিনিট চারেক পরে লো সেলসোর আরও এক দুর্দান্ত পাস, এবারে তা কাজে লাগাতে পারলেন না নিকোলাস গঞ্জালেজ। মিনিট দুই পরে আবারও লো সেলসোর পাস পেলেন গঞ্জালেজ এবারে শট নিলেও তা সোজাসুজি চলে যায় চিলির গোলরক্ষক ক্লদিও ব্রাভোর কাছে।;থ

‘৩৩তম মিনিটে লো সেলসোকে ফাউল করায় ফ্রি কিক পায় আর্জেন্টিনা। ডি-বক্সের সামনে রক্ষণের প্রাচীর দাঁড় করায় চিলি, তবে তা থোয়াড়াই পরোয়া করেন মেসি! চিলির রক্ষণ দেওয়ালের উপর দিয়ে গোলপোস্টের কোনা দিয়ে অবিশ্বাস্য দক্ষতায় বল জালে জড়ালেন। যেখানে অসহায়ের মতো তাকিয়েই ছিলেন মেসিরই ক্লাবের সাবেক সতীর্থ চিলির গোলরক্ষক ক্লদিও ব্রাভো। এদিন মেসি আর্জেন্টিনার হয়ে ১৪৫তম ম্যাচ খেলতে নামেন। আর্জেন্টিনার হয়ে আর তিনটি ম্যাচে খেলতে নামলে দেশটির হয়ে সর্বোচ্চ ম্যাচ খেলার রেকর্ড স্পর্শ করবেন এই কিংবদন্তি। বর্তমানে এই রেকর্ডের মালিক হ্যাভিয়ের মাশ্চেরানো।;
‘বিরতির পর ৫৭ মিনিটে পেনাল্টি পায় চিলি। এ সময় আর্জেন্টিনার নিকোলাস তাগলিয়াফিকো চিলির আর্তুরো ভিদালকে ডি বক্সের মধ্যে ফাউল করলে রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজান। ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি তথা ভিএআর চেকেও টিকে যায় সেটি।;

‘পেনাল্টি নিতে আসেন ভিদাল। তার নেওয়া কিক রুখে দেন আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ। কিন্তু বল তালুবন্দি করতে পারেননি। সামনে চলে আসা বলে হেড দিয়ে জালে পাঠান ইডুয়ার্ডো ভার্গাস। বাকি সময়ে আর কোনো গোল হয়নি।;

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!