রেস্তোরাঁর খাবারে ভ্যাট কমল

রেস্তোরাঁর খাবারে ভ্যাট কমল

নিজস্ব প্রতিবেদক:করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে বিধিনিষেধের আওতায় রেস্তোরাঁয় বসে খাওয়া নিষেধ। কিন্তু খাবার কিনে নিয়ে যাওয়া যাবে। তাই রেস্তোরাঁ চলছে মূলত সীমিত পরিসরে। তবে সংক্রমণ কমে গেলে বদলে যেতে পারে রেস্তোরাঁর এ চিত্র। করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত রেস্তোরাঁ ব্যবসা আবার জাগিয়ে তুলতে কমানো হয়েছে ভ্যাট হার। এতে গ্রাহকের খাবারের খরচ কিছুটা হলেও কমবে।

বর্তমানে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত (এসি) ফাস্ট ফুডের দোকান, রেস্তোরাঁয় প্রতি ১০০ টাকার খাবারে ১৫ টাকা ভ্যাট কেটে রাখা হয়। নতুন অর্থবছর তথা ১ জুলাই থেকে এ ধরনের ফাস্ট ফুডের দোকান ও রেস্তোরাঁ থেকে ভ্যাট কাটা হবে ১০ টাকা। আর নন–এসি রেস্তোরাঁ বা ফাস্ট ফুডের দোকানে ভ্যাট দিতে হবে সাড়ে ৭ শতাংশের পরিবর্তে ৫ শতাংশ।

আজ মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে ২০২১ সালের অর্থবিল পাসের সময় এই সংশোধনী আনা হয়েছে। এনবিআরের কর্মকর্তারা বলেছেন, এক বছর ধরে রেস্তোরাঁ ব্যবসা এমনিতে খারাপ গেছে। তাদের একটু স্বস্তি দিতে ভ্যাট কমানো হয়েছে।

বিদ্যমান ভ্যাট আইনের আওতায় কোনো প্রতিষ্ঠানের ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত টার্নওভারের ওপর কোনো ভ্যাট নেই। তবে রাজধানী ও বড় শহরের বহু এসি, নন-এসি রেস্তোরাঁকে ভ্যাটের আওতায় এনে ভ্যাট আদায়ের নানা উদ্যোগ নিয়েছেন ভ্যাট কর্মকর্তারা। প্যাকেজ ভ্যাট প্রথা উঠে যাওয়ার পর রেস্তোরাঁ খাত থেকে ভ্যাট আদায়ের তদারকি বাড়িয়েছেন তাঁরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!