পাকা রাস্তা ভাঙ্গনের হুমকির মুখে নকলার রাস্তাটি পরিদর্শনে যান নব নিযুক্ত  জেলা প্রশাসক মোমিনুর রশীদ

পাকা রাস্তা ভাঙ্গনের হুমকির মুখে নকলার রাস্তাটি পরিদর্শনে যান নব নিযুক্ত জেলা প্রশাসক মোমিনুর রশীদ

রেজাউল হাসান সাফিত,নকলা,শেরপুর।প্রতিনিধিঃ টানা কয়েক দিনের ভারী বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢলের প্রবল স্রোতের কারণে শেরপুরের নকলা উপজেলার পিছলাকুড়ী-তারাকান্দা পাকা সড়কটি নদী ভাঙ্গনের হুমকির মুখে পড়েছে। শুক্রবার বিকালে ওই ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাটি পরিদর্শনে যান শেরপুরের জেলা প্রশাসক মোমিনুর রশীদ।
এসময় উপস্থিত ছিলেন নকলা উপজেলা চেয়ারম্যান শাহ মোঃ বোরহান উদ্দিন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান সারোয়ার আলম তালুকদার, উপজেলা প্রকৌশলী আরেফীন পারভেজ,ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজিম উদ্দীন মাষ্টার, সাধারণ সম্পাদক আক্তাউজ্জামান, উরফা ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল হক হীরা, নকলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসাইন বাবু,সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ নুর হোসেন, সদস্য মোফাজ্জল হোসেন ও রাইসুল ইসলাম রিফাত,
ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ মিয়াসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে,
পাকা সড়ক থেকে ৫০০ থেকে ৬০০ গজ পূর্ব দিকে নদী ছিল কিন্তু রাস্তার পাশ থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের কারণে নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়ে গত বছর রাস্তা সংলগ্ন জমি ভাঙ্গনের শুরু হয়। শুকনো মৌসুমে সেখানে কিছু বালু ফেলে ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা করা হলেও এবার বর্ষার শুরুতেই নদীর স্রোতে রাস্তা ভেঙ্গে নিয়ে গেছে, আর সামান্য ভাঙ্গন হলেই নিজাম উদ্দিনের বাড়িসহ আরো কয়েকটি বাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
এছাড়া পিছলাকুড়ী-তারাকান্দা সড়কটি ধ্বসে গেলে পাহাড়ি ঢলে বন্যার পানিতে নকলা উপজেলার বিস্তীর্র্ণ ফসলের মাঠ এবং তলিয়ে যাবে রাস্তা ঘাট ও ঘর বাড়ি। সড়কটি সংস্কাওে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কাছে দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।
এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মোমিনুর রশীদ বলেন, ‘আমি ক্ষতিগ্রস্ত সড়কটি পরিদর্শন করেছি এবং সড়কটি সংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!