শেরপুরে আশ্রয়ন প্রকল্পের নির্মাণকৃত ঘর গুণগত মান ভালো হওয়ায় এখনো অক্ষত|| সত্যবয়ান

শেরপুরে আশ্রয়ন প্রকল্পের নির্মাণকৃত ঘর গুণগত মান ভালো হওয়ায় এখনো অক্ষত|| সত্যবয়ান

বুলবুল আহম্মেদ:সারা বাংলাদেশে একযোগে গৃহহীনদের জন্য নির্মিত “ক” শ্রেণীর ঘর বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন। উদ্বোধন করার পূর্বে ও পরে বিভিন্ন জেলায় আংশিক কিছু ওইসব ঘরের ফাটল ও পুরোটাই ভাঙ্গা বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়। এতে করে ওইসব জেলা গুলোতে স্থানীয় প্রশাসনসহ রাজনৈতিক লোকজনকে ঘিরে দেশজুড়ে সমালোচনার ঝড় বসতে শুরু করে। গেলো গত জুলাই মাসে বেশ কয়েকটি জেলায় বণ্যা কবলিত হলে সেখানে থাকা গৃহহীনদের ঘর সে বণ্যার পানিতে ভাসিয়ে নিয়ে যায়। ক্ষতিগ্রস্ত গৃহহীনরা গণমাধ্যমে অভিযোগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী ঘর হস্তান্তরের আগেই সে সকল ঘর ফাটল দেখা দিয়েছে। অসাধু কর্মকর্তাদের অনিয়মের কারণে ঘরে উঠার আগেই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাচ্ছে আশ্রয়ন প্রকল্পের এসব ঘর। এতে উপকারভোগিদের মাঝে ছড়িয়ে পড়েছে আতঙ্ক। এ অনিয়মের সাথে জড়িতদের বিচার দাবি করেন স্থানীয়রা।

এদিকে সীমান্তবর্তী শেরপুর জেলায় প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া আশ্রয়ন প্রকল্পের নির্মিত “ক” শ্রেণীর ঘর এখনো অক্ষত অবস্থায় রয়েছে। এখানে কোন ধরনের ফাটল কিংবা ভেঙ্গে পড়ার মতো অবস্থা  লক্ষ করা যায়নি। জেলায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে “ক” শ্রেণীর ভূমিহীন ও গৃহহীনদের মাঝে ১ম ও ২য় পর্যায় প্রাপ্ত ঘরের সংখ্যা ৪শত ৫৮ টি। এর মধ্যে শেরপুর সদরে ১ম পর্যায় ৫৫ ও ২য় পর্যায় ৩০ মোট ৮৫ টি। নকলা উপজেলায় ১ম পর্যায় ৫৮ ও ২য় পর্যায় ৪২ মোট ১০০ টি। নালিতাবাড়ী উপজেলায় ১ম পর্যায় ৬৩ ও ২য় পর্যায় ৫০ মোট ১শত ১৩ টি। ঝিনাইগাতী উপজেলায় ১ম পর্যায় ৬৫ ও ২য় পর্যায় ২৫ মোট ৯০টি। শ্রীবরদী উপজেলায় ১ম পর্যায় ৫০ ও ২য় পর্যায় ২০ মোট ৭০ টি। 

মুজিববর্ষ উপলক্ষে গৃহহীনদের দেওয়া “ক”শ্রেণীর ঘর শেরপুরে অক্ষত থাকার বিষয়ে জেলা প্রশাসক মোঃ মোমিনুর রশীদ এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, মুজিব বর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে জেলায় ৪শত ৫৮টি ঘর দেওয়া হয়েছে। যতগুলি এ জেলায় আশ্রয়ন প্রকল্প দেওয়া হয়েছে তা অত্যন্ত সুন্দর ও মজবুত অবস্থায় রয়েছে। ঘর তৈরির আগে জায়গা সিলেকশন থেকে শুরু করে মাটি বরাট ও কাজের গুণগত মান অত্যন্ত সুন্দর ভাবে করা হয়েছে। এ কারনেই জেলাতে এখন পর্যন্ত কোন নীতিবাচক ঘটনা লক্ষ করা যায়নি। জেলার অন্তর্গত প্রত্যেকটি উপজেলায় আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরগুলি সুন্দর ভাবে তৈরি করা হয়েছে। এর গুণগত মানও অনেক সুন্দর। যারা এ ঘর পেয়েছেন তারা অত্যন্ত খুশি। তাদের মধ্যে কোন রকম ক্ষোভ নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!