ন্যাড়া করলে কী নতুন চুল গজায়?-সত্যবয়ান

ন্যাড়া করলে কী নতুন চুল গজায়?-সত্যবয়ান

সত্যবয়ান ডেস্ক:বছরে বছরে মাথা ন্যাড়া করলে নতুন চুল গজানো কী বৃদ্ধি পায়? অনেকে মনে করেন, চুল আসলে গাছের মতো। যতটা ছাঁটা হবে, তত ঘন হবে। কিন্তু এর কোনো বৈজ্ঞানিক যুক্তি নেই।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, চুল ন্যাড়া করার অর্থ হচ্ছে মাথার ওপরে চুলের যতটুকু অংশ আছে, কেবল সেটুকুই ফেলে দিচ্ছেন। এর ফলে আপনার চুল পড়া ও চুলের স্বাস্থ্য উন্নতির হওয়া সম্ভব নয়। চুলের স্বাস্থ্যে জিন বা বংশগতির ধারার ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। তাই বাচ্চাকে যত বারই ন্যাড়া করুন না কেন, সে পরিবারের অন্য সবার মতোই চুলের ধারা পাবে।

চুল গজানোর সঙ্গে মাথা ন্যাড়া করার সম্পর্ক না থাকলেও বিষয়টি ভাবনার। কারণ অতিরিক্ত চুল ফেলার কারণে মাথার ত্বকের ওপর বাড়তি চাপ পড়ে। যা পরবর্তীতে লালচে, ফ্যাকাসে বা নরম চুল গজানোর কারণ হতে পারে। অনেকের আবার ত্বক অতিরিক্ত সেন্সেটিভ হয়ে অন্যান্য সমস্যাও দেখা দিতে পারে।

ন্যাড়া হওয়ার কি একেবারেই কোনো সুবিধা নেই? তাও নয়। দুইটি সুবিধা আছে।

প্রথমত, যাদের চুলের গোঁড়া দুর্বল, তাদের চুল বেশি লম্বা হয়ে গেলে বেশি মাত্রায় ঝরতে থাকে। ন্যাড়া হলে তার পরিমাণ কমে। আর দ্বিতীয়ত, মাথার ত্বকে অনেক সময়ে ছত্রাক বা নানা ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ঘটায়। তার ফলে চুল পড়ে যায়। ন্যাড়া হলে সেই সংক্রমণের হার কমে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. হুমায়ুন কবীর হিমু বলেন, আসলে চুল কামালে চুল ঘন ভাবে গজায় না। মাথা ন্যাড়া করা চুল পড়া বন্ধ করে না বা কালোও করে না। আসলে এটি বংশগত একটি বিষয়।

কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক প্রভাষক ডা. সাবিকুন নাহার বলেন, অনেকে ভাবেন, চুল কামিয়ে ফেললে বা মাথা ন্যাড়া করে ফেললে চুল পড়া কমে যায় বা চুল ঘন ভাবে গজায়। এ ধারণা সঠিক নয়। তবে চুল পড়া রোধে মাথায় ব্যবহারের জন্য চিকিৎসক যদি কোনো ওষুধ দেন, সেটি ভালোভাবে লাগানোর জন্য চুল কামানো যেতে পারে। তবে কামাতেই হবে, এমন কোনো বিষয় নেই। তাই চুল ঘন করার উদ্দেশ্যে কামানোর কোনো প্রয়োজন নেই।

অর্থাৎ, ন্যাড়া হলে চুল ঘন হবে- এই ধারণা ভুল। কিন্তু ন্যাড়া হলে চুল পড়ার হার কমবে- কারো কারো ক্ষেত্রে এ কথা সত্যি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!