নালিতাবাড়ীতে চালককে নেশাদ্রব্য খাওয়ানোর পর অটোরিকশা ছিনতাইয়ের অভিযোগে দুইজন আটক

নালিতাবাড়ীতে চালককে নেশাদ্রব্য খাওয়ানোর পর অটোরিকশা ছিনতাইয়ের অভিযোগে দুইজন আটক

জাহেদুল রাসেল, নালিতাবাড়ি (শেরপুর) প্রতিনিধি:
শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে চালককে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাওয়ানোর পর অটোরিকশা ছিনতাইয়ের অভিযোগে দুই ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী।

শনিবার (২১ আগষ্ট) রাতে উপজেলার শিমুলতলা এলাকায় তাদেরকে আটক করা হয়। রবিবার আটক হওয়া দুইজনকে নিয়ে জড়িতদেরকে গ্রেফতার করতে অভিযান চলছে বলে থানা পুলিশ জানিয়েছে।

আটককৃতরা হলেন কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার গোনারচর গ্রামের জামাল উদ্দিন ও মাদারীপুর জেলার ডাসার উপজেলার দক্ষিণ মাওতালি গ্রামের বজলুর রহমান।

নেশাদ্রব্য খেয়ে অসুস্থ অটোরিকশাচালক শফিকুল ইসলাম শেরপুর জেলার নকলা উপজেলার হাসনখিলা গ্রামের আবদুল মতিনের ছেলে। তিনি বর্তমানে নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

জানা গেছে, শনিবার বিকেলে নকলা থেকে জামাল ও বজলুর শফিকুলের অটোরিকশায় ওঠেন। সন্ধ্যা সাতটার দিকে নালিতাবাড়ী উপজেলার শিমুলতলা পল্লী বিদ্যুৎ স্টেশনের কাছের বাজারে অটোরিকশা থামাতে বলেন তারা। এসময় অটোরিকশা থেকে নেমে জামাল ও বজলুর বাজারের একটি দোকান থেকে জুস কিনে তারা একটি বন্ধ দোকানের সামনের বেঞ্চে বসে জুস পান করেন। পরে তারা চালক শফিকুলকেও জুস পান করতে অনুরোধ করলে অটোরিকশা থেকে নেমে শফিকুল তাদের সঙ্গে জুস পান করেন। সেখানে কিছুটা দূরে বসে থাকা সজীব মিয়া নামের এক তরুণ অটোরিকশাচালক শফিকুলকে বেঞ্চ থেকে মাটিতে পড়ে যেতে দেখেন। এরপর ওই তরুণ দ্রুত বিষয়টি বাজারের লোকজনকে জানালে তারা জামাল ও বজলুরকে আটক করেন। এসময় এলাকাবাসী শফিকুলকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে অভিযুক্ত ওই দুই ব্যক্তিকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. সাব্বির হোসেন বলেন, ওই অটোচালক রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। নেশাদ্রব্য খাওয়ানোর ফলে সারারাত তিনি অজ্ঞান ছিলেন। সকাল থেকে হাত–পা নাড়াচ্ছেন। অস্পষ্টভাবে কথাও বলছেন তিনি।

এ ব্যাপারে নালিতাবাড়ী থানার ওসি বছির আহমেদ বাদল বলেন, পুলিশ হেফাজতে থাকা দুই ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করে রবিবার তাদেরকে নিয়ে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। আটক হওয়া বজলুর রহমানের বিরুদ্ধে গোপালগঞ্জের মুকসেদপুর, নরসিংদীর পলাশপুর ও জয়দেবপুর থানায় চুরি, ছিনতাই ও ডাকাতির মামলা রয়েছে। আর জামাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে জয়দেবপুর থানায় দুটি মাদক মামলা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.