টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেন তামিম ইকবাল-সত্যবয়ান

টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেন তামিম ইকবাল-সত্যবয়ান

খেলা ডেস্ক|| টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাংলাদেশ দল থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেন জাতীয় দলের ওপেনার তামিম ইকবাল। আজ নিজের ফেসবুক পেজে এক ভিডিও বার্তায় তিনি এ ঘোষণা দিয়েছেন।

ফেসবুকে নিজের পেজে ভিডিও বার্তায় তামিম বলেন, ‘কিছুক্ষণ আগে আমাদের প্রধান নির্বাচক নান্নু ভাই (মিনহাজুল আবেদীন) ও বোর্ড সভাপতি পাপন ভাইকে (নাজমুল হাসান) ফোন করেছিলাম। তাদের সঙ্গে কিছু বিষয় শেয়ার করেছি। যেটি আমি আসলে সবার সঙ্গেই শেয়ার করতে চাই। আমি ওনাদের বলেছি, আমি মনে করি না যে আমার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে থাকা উচিত। আসলে আমি বিশ্বকাপ দলে থাকছি না। এর কিছু কারণ রয়েছে। অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে, আমি এই সংস্করণের ক্রিকেট অনেক দিন ধরে খেলছি না। দ্বিতীয় কারণ হচ্ছে চোট, তবে আমি মনে করি না চোট খুব বড় সমস্যা। আশা করছি বিশ্বকাপের আগেই আমি চোট থেকে সের উঠব। কিন্তু যে জিনিসটা এ সিদ্ধান্ত নিতে আমাকে উদ্বুদ্ধ করেছে সেটি হচ্ছে, আমি শেষ ১৫-১৬টি টি-টোয়েন্টি খেলিনি। আর আমার জায়গায় এত দিন যারা খেলছিল, আমি মনে করি, সেটি কোনোভাবেই ঠিক হতো না যদি আমি হঠাৎ করে এসে ওদের জায়গাটা নিয়ে নিই। আমি জানি না, কিন্তু আমার মনে হয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে আমি হয়তো থাকতাম। কিন্তু আমার কাছে মনে হয় না যে ব্যাপারটা ঠিক হতো, ন্যায্য হতো। আমি এ কথাটাই প্রধান নির্বাচক ও বোর্ড সভাপতির কাছে বলেছি। তাই খুব সম্ভবত বিশ্বকাপে আমাকে দেখবেন না আপনারা। কিন্তু বিশ্বকাপ দলের জন্য আমার শুভ কামনা থাকবে সব সময়ই।

এ ব্যাপারে প্রথম আলোকে জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন জানিয়েছেন, ‘তামিম আমাকে ফোন করেছিল। সে আমাকে তাঁর সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে। একটু পরে আমরা তিন নির্বাচক বসব এটি নিয়ে। তামিমের সঙ্গেও কথা বলব। এরপর প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত নেব।

তামিম স্পষ্ট করেছেন আরও একটি বিষয়—টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দল থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়া মানে এই নয় যে তিনি টি–টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে অবসর নিচ্ছেন, ‘আমি আবারও পরিস্কার করে দিই, আমি কিন্তু অবসর নিচ্ছি না। এ বিশ্বকাপটি আমি খেলছি না।

বাংলাদেশের ওপেনারের ভাবনায় থাকছেন দলের তরুণ ক্রিকেটাররা। যারা তাঁর অনুপস্থিতিতে খেলেছেন এবং ভালো করেছেন তাদের জায়গা তিনি বাইরে থেকে এসে নিয়ে নিতে চান না, ‘আমার মনে হয়, যারা আমার জায়গায় খেলেছে, বিশ্বকাপে ওদের সুযোগ পাওয়া উচিত। কারণ, ওরা গত ১৫-১৬ ম্যাচ ধরে খেলছে। ওদের প্রস্তুতি হয়তো আমার চেয়ে ভালো। আমি মনে করি তারা আমার চেয়ে আরও ভালো সার্ভিস দিতে পারবে।

তাঁর সিদ্ধান্ত নিয়ে বিতর্কের কোনো অবকাশ নেই বলেই জানিয়েছেন তিনি, ‘আমি যে সিদ্ধান্তটি নিয়েছি, তাতে অটল থাকব। এটা নিয়ে বলার কিছু নেই। কেন আমি বিশ্বকাপ দল থেকে নিজেকে সরিয়ে নিচ্ছি, সব কারণই বলে দিয়েছি। আমার যা মনে হয়েছে সেটিই করেছি। যারা আমাকে চেনেন, তারা জানেন আমি যা করি, সেটি মন থেকেই করি। আমার মন বলছিল, সরে দাঁড়ানোই সঠিক ব্যাপার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.