নালিতাবাড়ীতে লোডশেডিংয়ে ভােগান্তি পােহাচ্ছেন এলাকাবাসী-সত্যবয়ান

নালিতাবাড়ীতে লোডশেডিংয়ে ভােগান্তি পােহাচ্ছেন এলাকাবাসী-সত্যবয়ান

জাহেদুল রাসেল, নালিতাবাড়ী প্রতিনিধি||শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে লোডশেডিংয়ে ভােগান্তি পােহাচ্ছেন এলাকাবাসী। দীর্ঘ এক মাস ধরে বিদ্যুৎ যেন আলাউদ্দিনের চেরাগ। দিন ও রাত মিলিয়ে থাকছেনা বিদ্যুৎ। ঝড় বৃষ্টি হলে থাকেনা দিনের পর দিন। দীর্ঘ সময় বিদ্যুৎ না থাকাতে অভিযোগ করছে এলাকাবাসী।

আবাসিক প্রকৌশলী অফিস সূত্রে জানা গেছে, নালিতাবাড়ীতে বাণিজ্যিক ও আবাসিকসহ ১১ হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহক রয়েছে। এতে উপজেলায় বিদ্যুতের চাহিদা ছয় মেগাওয়াট। দুটি ট্রান্সফরমারের মাধ্যমে চারটি ফিডারে ১১ হাজার গ্রাহককে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে।

আয়নাতলী গ্রামের পরীক্ষার্থী রাসেল আহমেদ জানান, কলেজ খুলেছে, আমাদের পড়াশােনার চাপ বেড়ে গেছে। দিনে তাে বিদ্যুৎ থাকেই না। রাতে পড়াশােনার সময়টাতেও বিদ্যুৎ থাকেনা।

শহরের উত্তর বাজার এলাকার কম্পিউটার ব্যবসায়ী রাকিবুল ইসলাম (৩৫) বলেন, কয়েক মিনিট পর পরই বিদ্যুৎ চলে যায়। আবার কখনাে কয়েক ঘণ্টার জন্য বিদ্যুৎ থাকে না। কম্পিউটারের কাজ করি, ফটোকপি মেশিন চালাই। এগুলােতে বিদ্যুৎ ছাড়া কাজ করা সম্ভব নয়। তাছাড়া ঘনঘন লোডশেডিং এর কারণে কম্পিউটার তথা ফটোমেশিনের যান্ত্রিক ক্ষতি হয়। সব মিলিয়ে ব্যবসায়িকভাবে অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি।

গোজাকুড়া গ্রামের গৃহিণী পারভিন আক্তার (৩২) বলেন, সরকার তাে বলে দেশ বিদ্যুতে স্বয়ংসম্পূর্ণ। তাহলে এত লোডশেডিং কেন হয়? ফ্রিজে রাখা খাবারগুলােও নষ্ট হয়ে যায়। গরমে ঘুমানো যায় না। লােডশেডিংয়ে আমাদের জীবন এখন অতিষ্ঠ। ”

আবাসিক প্রকৌশলী (আরই) সুশান্ত পাল বলেন, “ ময়মনসিংহ বিভাগে বিদ্যুতের এই সমস্যা চলছে। তাই চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ পাচ্ছি না। ফলে কিছুটা লোডশেডিং বেড়েছে। সমস্যা মিটে গেলে চাহিদা পূরণ করতে কোনাে সমস্যা হবে না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!