বাক্কারের চিকিৎসার জন্য জেলা প্রশাসনের অর্থ সহযোগিতা -সত্যবয়ান

বাক্কারের চিকিৎসার জন্য জেলা প্রশাসনের অর্থ সহযোগিতা -সত্যবয়ান

নকলা (শেরপুর) প্রতিনিধি: অর্থের অভাবে চিকিৎসা ও খাদ্য সংকটে থাকা অসহায় বাক্কারের পাশে দাঁড়িয়েছেন নকলা উপজেলা প্রশাসন।

শেরপুরের নকলা উপজেলার পাঠাকাটা ইউনিয়নের চকপাঠাকাটা গ্রামে বাক্কার আলীর চিকিৎসা ও অর্থের অভাবে মৃত্যুর প্রহর গুনছে। পচন ধরেছে হাত ও পায়ে । এমন সংবাদ গতকাল কালের কণ্ঠে প্রকাশিত হওয়ার পর বিষয়টি নজরে আসে শেরপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ মোমিনুর রশিদের এরপর আজ ২৩ অক্টোবর নকলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুর রহমান নগদ ১০ হাজার টাকা ও ২ সপ্তাহের খাদ্য সামগ্রী নিয়ে হাজির হন। এ সময় নকলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সড়ক দুর্ঘটনায় পঙ্গু বাক্কারের জন্য দ্রুত প্রতিবন্ধী ভাতা সহ চিকিৎসায় সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন অত্র পাঠাকাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফয়েজ মিল্লাত , তিনিও তার ব্যক্তিগত ভাবে সার্বিক সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন।

রক্ত সৈনিক নকলা উপজেলা সভাপতি ফজলে রাব্বি বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত বাক্কারের অপারেশনের জন্য যত টুকু রক্ত প্রয়োজন আমরা তাকে সেই সহযোগিতা করবো।
নকলা অদম্য মেধাবী সহায়তা সংস্থার পক্ষ থেকে হুইল চেয়ার বিতরণ করা হয়েছে বাক্কারের জন্য

পিতা মাতা ,ভাই বোন, আত্মীয় স্বজন কেউ নেই বাক্কারের থাকার জন্য নেই কোন ভিটে মাটি। একমাত্র ১৩ বছরের ছেলে ও প্রতিবেশীদের কোন রকম সহযোগিতা চলছে তার অসহায় জীবন।

এই বাক্কার কিছু দিন আগে জীবনের তাগিদে কাজের সন্ধানে কুমিল্লা শহরে গিয়ে ট্রেন দুর্ঘটনা একটি পা কেটে ফেলতে হয়। সেখানে দীর্ঘ দিন নকলা উপজেলার কৃতি সন্তান ডাঃ সোহরাব হোসেনের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা শেষে বেশ কিছু দিন নকলা উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ছিল। এরপর তার পায়ের অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অর্থের অভাবে ও অপারেশনের জন্য রক্তের অভাবে আবার ফিরে আসতে হয় বাড়িতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.