শেরপুর জেলা ফুটবল লীগ : শেষ ৫ মিনিটের ঝলকে শ্রীবরদীকে হারালে কুসুমকলি-সত্যবয়ান

শেরপুর জেলা ফুটবল লীগ : শেষ ৫ মিনিটের ঝলকে শ্রীবরদীকে হারালে কুসুমকলি-সত্যবয়ান

শেরপুর প্রতিনিধি :শেরপুরে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ জেলা ফুটবল লীগে ১৮ অক্টোবর সোমবারের খেলায় রাজু-সোহাগের শেষ ৫ মিনিটের ঝলকে শ্রীবরদী উপজেলা ক্রীড়া সংস্থাকে ৩-৫ গোলে হারিয়ে জয় পেয়েছে কুসুমকলি স্পোর্টিং ক্লাব। লীগের প্রথম হ্যাট্রিকও হয়েছে এ ম্যাচে। কুসুমকলির মিডফিল্ডার রাজু আহমেদ খেলার ১০, ৩৯ ও ৮৫ মিনিটে পর পর ৩ গোল করে হ্যাট্রিক পূর্ণ করেছেন। খেলা শুরুর ২ মিনিটের মাথায় কুসুমকলির ডি-বক্সের ভেতর এক ডিফেন্ডারের হাতে বল লাগলে রেফারি শফিউল্লাহ হ্যান্ডবলের বাঁশি বাজান। পেনাল্টিতে গোল করেন শ্রীবরদীর লেফট উইংগার অনির্বান ¤্রং। এর ৮ মিনিট পর একইভাবে ডি-বক্সের ভেতর শ্রীবরদীর এক ডিফেন্ডারের হাতে বল লাগলে রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজান। পেনাল্টিতে গোলকিপারকে ডজ দিয়ে বল জালে প্রবেশ করিয়ে গোলের খাতা খুলেন হ্যাট্রিকম্যান কুসুমকলির রাজু। খেলার ৩৯ মিনিটে রাজু আরেকটি ফিল্ড গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। কিন্তু ৪২ মিনিটের মাথায় শ্রীবরদীর রাইট উইংগার গোল করলে ২-২ গোলের সমতায় বিরতিতে যায় দুই দল। বিরতি থেকে ফিরে আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে দু’দলের খেলার বেশ জমে ওঠে। একপর্যায়ে ৬৭ মিনিটে শ্রীবরদীর লেফট উইংগার অনির্বান ¤্রং নিজের দ্বিতীয় ও দলের তৃতীয় গোল করলে তারা এগিয়ে যায়। দলের লিড ধরে রেখে শ্রীবরদীর খেলোয়াড়রা নিজেদের পায়ে বল রেখে জয়ের সম্ভাবনা জাগিয়ে তোলে। কিন্তু খেলার ধারার বিপরীতে ৮৫ মিনিটে একটি পাল্টা আক্রমণ থেকে কুমুসকলির রাজু নিজের তৃতীয় গোল করে হ্যাট্রিক পূর্ণ করলে খেলায় ৩-৩ গোলে সমতা ফিরে আসে। একপর্যায়ে আচমকা দু’টি আক্রমন থেকে ৮৯ ও ৯০ মিনিটে কুসুমকলির সোহাগ পর পর দু’টি গোল করলে ৫-৩ গোলের জয় পায় কুসুমকলি স্পোর্টিং ক্লাব। অনেকটা নিশ্চিত জয় হাতছাড়া হওয়ায় একরাশ হতাশা নিয়ে মাথা নিচু করে মাঠ ছাড়ে শ্রীবরদী উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার ফুটবলাররা। ডিএফএ কর্মকর্তারা জানান, গত ১৬ অক্টোবর থেকে শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ শেরপুর জেলা ফুটবল লীগের খেলা। এবারের জেলা ফুটবল লীগে ১৬টি ক্লাব/সংস্থার দল ৪টি গ্রæপে ভাগ হয়ে লীগভিত্তিতে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছে। লীগের স্পন্সর হয়েছে জেএন্ডএস গ্রæপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান আবেদীন হাসপাতাল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.