নির্বাচনী খিচুরি নিয়ে সংঘর্ষে যুবক নিহত-সত্যবয়ান

নির্বাচনী খিচুরি নিয়ে সংঘর্ষে যুবক নিহত-সত্যবয়ান

স্টাফ রিপোর্টার||শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে নির্বাচনী খিচুরি নিয়ে ছোট শিশুদের ঝগড়ার জেরে সহোদর ছোট বোনের স্বামী রুমান মিয়াকে (ভগ্নিপতি) কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে সমন্ধি সোলায়মান (২৫) নামের যুবকের বিরুদ্ধে। শনিবার ৩০ অক্টোবর রাতে উপজেলার বাঘবেড় বালুরচর গ্রামের এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে।

নিহত রুমান মিয়া (২৮) বাঘবেড় বালুরচর গ্রামের আজিজুল হকের ছেলে।

নিহত রুমানের ছোট ভাই ভাষাণী বলেন, বাঘবেড় এলাকায় শুক্রবার রাতে ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুস সবুরের নির্বাচনী প্রচারণা শেষে সকলের মাঝে খিচুরি বিতরণ করা হয়। বিতরণ করা খিচুরি আমার স্ত্রী ফ্রিজে রেখে দেই। ফ্রিজে রেখে দেওয়া খিচুরি পরদিন শনিবার বিকেলে আমার ছয় বছর বয়সী মেয়ে বর্ষাকে খেতে দেয়। আমার মেয়ে ওই খিচুরি হাতে নিয়ে আমাদের বাড়ির পাশের মানিক মিয়ার বাড়িতে যায়। এসময় মানিক মিয়ার তিন বছর বয়সী ছেলে মমিন নাড়া দিয়ে খিচুরি ফেলায় দেয়।
এনিয়ে কথা কাটা কাটির একপর্যায়ে মানিকের ভাতিজা অটোচালক অভিযুক্ত সোলায়মান নিহত রুমানের পিতা ও সোলায়মানের সহোদর বোনের শ্বশুর আজিজুলকে আঘাত করে। এর প্রতিবাদ করতে গেলে রাতে রুমান ও তার ভাই ভাষাণীর সাথেও সোলায়মানের ঝগড়া বাঁধে।

পরে খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য গোলাম মস্তুফার ছেলে এসে রবিবার বিষয়টি মিমাংসার কথা বলে পরিস্থিতি শান্ত করে চলে যান।
বাঘবেড় ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্য গোলাম মস্তুফা জানান, স্থানীয়রা আমার কাছে ফোন দেই। পরে কাছে খবর পেয়ে আমার ছেলে এ ভাতিজাকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছিলাম। এবং আজ রবিবার ঝগড়ার বিষয়টি মিমাংসার কথা বলে পরিস্থিতি শান্ত করা হয়। আর আজ সকালে আমরা বিষয়টি নিয়ে বসার ব্যবস্থাও করেছিলাম।

এদিকে নিহতের বাবা আজিজুল হক জানান, শনিবার রাতে আমার ছেলে রুমান তার মোটর সাইকেল নিয়ে বাঘবেড় বাজারের উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়। কিন্তু আগে থেকেই তার সমন্ধি সোলায়মান ধারালো অস্ত্র নিয়ে বাড়ি থেকে প্রায় পাঁচশ গজ দূরে বাঘবেড় বালুরচর মসজিদের কাছে অবস্থান করছিল। সেখানে আসামাত্রই আমার ছেলের মোটর সাইকেল রাস্তায় বেরিকেট দিয়ে পথ রোধ করে ও উপর্যুপরি ছুড়ি কাঘাত করে হত্যা করে ফেলে যায়। এসময় পথচারীরা টেরে পেয়ে আমার ছেলে রুমানকে উদ্ধার করে নালিতাবাড়ী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ব্যাপারে নালিতাবাড়ী হাসপাতালের আরএমও সাব্বির আহাম্মেদ জানান, মৃত অবস্থায়ই রুমানকে হাসপাতালে আসা হয়েছিল। পরে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে তাকে মৃত ঘোষনা করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বছির আহমেদ বাদল জানান, এ ঘটনায় নালিতাবাড়ী থানায় মৃত রুমানের বাবা আজিজুল হক বাদী হয়ে ৪জন নামীয় ও ৩ জন অজ্ঞাতসহ ৭জনের নামে অভিযোগ দেয়ার পর একটি হত্যা মামলা রুজু করা হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শেরপুর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। জড়িতদের গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!