আমার বাবার লাশটা কেউ আইন্না দেন এক নজর দেখুম||সত্যবয়ান

আমার বাবার লাশটা কেউ আইন্না দেন এক নজর দেখুম||সত্যবয়ান

নকলা সংবাদদাতা: আইন্নেরা আমার পোলাডার সঙ্গে একবার কতা কউয়াইয়া দেইন। তার মুখটা আমারে একবার দেহাইন। আমি আর সবার পাইতাছিনা। আমার বাবা সৌদি গেছে। বাবাডার সাথে প্রত্যিদিন কতা না কইলে আমার রাইতে ঘুম অয়না। মেলা দিন অয়া গেলো আমার বাবায় ফোন দেয়না। অহন সবাই কয় আমার কলিজার বাবাডা নাকি মইরা গেছে! আমার বাবা মরে নাই! যদি মইরা যাইতো তাইলে বাবার নাস বাড়িত আনতে এত দেড়ি নাগে কে? আইন্নেরা সবাই আমার নগে মিচা কতা কইতাছুইন ? আমারে কান্দাইয়া আন্নেগরে নাভ কি? যেকোন মানুষ দেখলে এভাবেই আহাজারি শুরু করেন শেরপুরের নকলা উপজেলার সৌদি প্রবাসী এক ছেলে হারা বৃদ্ধা মা কদ ভানু।

তিনি উপজেলার উরফা ইউনিয়নের মোজাকান্দা গ্রামের মো. অহেদ আলীর স্ত্রী এবং সৌদি প্রবাসী পরিবারে জন্য উপার্জনের একমাত্র ছেলে সদ্যমৃত দুলাল উদ্দিনের মা।

উরফা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নূরে আলম তালুকদার ভূট্টো জানান, দুলাল উদ্দিন (২৯) তিন বছর পূর্বে পরিবারের স্বচ্ছলতার উদ্দেশ্যে সৌদি আরবে পাড়ি জমান। সেখানে নির্মাণকাজ করতেন তিনি।

এদিকে দুলালের মৃত্যুর খবরে তাঁর পরিবারে ও এলাকায় চলছে শোকের মাতম। নিজের ক্ষতির বিলাপ করতে করতে বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন মা কদ ভানু বেগম। তিনি কেঁদে কেঁদে বলছিলেন আমার কলিজার টুকরা পোলাডারে আমার কোলে আইন্না দেন, আমারে শান্তি দেওয়ার জন্য আমার পোলাডা সবকিছু বেইচ্চা বিদেশে গেছে। ও আল্লাহ, এ কেমন পরীক্ষা তোমার। অবিবাহিত পোলাডারে লইয়া গেলা!

এলাকা সূত্রে জানা গেছে, মো. দুলাল উদ্দিন (২৯) চলতি বছরের জুলাই মাসের ২০ তারিখে কর্মরত থাকা অবস্থায় মারা যান। তার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর: ৫০৫২০৪৯৩৩৪। জন্ম তারিখ: ১০ মার্চ, ১৯৯৩ খ্রি।

মারা যাওয়ার পর দীর্ঘদিন গত হলেও অজ্ঞাত কারনে তার মরদেহ বাংলাদেশে আসছে না। ছেলের লাশের অপেক্ষায় দিনরাত কেঁদে কেঁদে কাটাতে হচ্ছে বৃদ্ধ বাবা-মাসহ পরিবার পরিজনকে। প্রবাসে (সৌদিতে) মৃত দুলাল উদ্দিনের মরদেহ বাংলাদেশে আনার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নিহতের সহোদর বড় ভাই মো. আবুল হোসেন জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিস জামালপুরের সহকারী পরিচালকের মাধ্যমে ওয়েজ অনার্স কল্যাণ বোর্ড-এর মহাপরিচালক বরাবর আবেদন করেছেন বলে নিহতের বড় ভাই জানান। এতেও কোন আশার আলো না দেখে হতাশ হয়ে পড়ছেন পরিবার পরিজন।

আবুল হোসেন জানান, ভাইয়ের মুখটা বৃদ্ধ মা-বাবাকে শেষ বারের মতো দেখাতে পারলে আমরা শান্তি পেতাম। এখন তারা পাগল প্রায়। এমতাবস্থায় উর্ধ্বতন সংশ্লিষ্টদের সুদৃষ্টি কামনা করছেন নিহতের পরিবারসহ সুশীলজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.